অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার সহজ নিয়ম

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার সহজ নিয়ম

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়মঃ অনলাইনে ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন কিভাবে করতে হয় সেই সম্পর্কে আমাদের মাঝে অনেকে জানেন না। তাই তারা নতুন ভোটার আইডি কার্ড কারার নিয়ম জানতে চায়। আজকে তাদের জন্য আমাদের এই লেখা। আজকের লেখায় আপনাদের দেখিয়ে দিবো, নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন ফরম, নতুন আইডি কার্ড পেতে কতদিন সময় লাগে, এনআইডি কার্ড পেতে কতদিন সময় লাগে ও নতুন ভোটার হওয়ার জন্য কি কি লাগবে সেই সব সম্পর্কে। চলুন দেরি না করে আপনাদের দেখিয়ে দেই।

বর্তমান বাংলাদেশে ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র করা ও জাতীয় পরিচয়পত্র ভুল সংশোধন করা অনেক বেশি কঠিন হয়ে পড়েছে। কারন এই কাজগুলো এখন করতে মানুষকে অনেক বেশি সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। সেই সাথে অনেক ঝামেলাও পোহাতে হচ্ছে।

আরও পড়ুন – বাংলা লেখালেখি করে অনলাইন থেকে টাকা আয়

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

এই কথাগুলো আমার মন গড়া কথা নয়, পূর্বে ২০২২ সালে যারা এনআইডি কার্ড সংশোধন করেছেন তারা সব থেকে ভালো জানেন যে, কতটা ঝামেলায় পড়তে হয় এই জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে।

তাছাড়া জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পেতে বা সংশোধন করতে কত সময় ও অর্থ ব্যয় হয় তা শুধুমাত্র পূর্বে যারা করেছেন তারাই ভালো বলতে পারবেন।

কিন্তু বর্তমানে এখন ঘরে বসে খুব সহজে অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করা সম্ভব হচ্ছে। তাি আজ আপনাদের দেখাবো, কি ভাবে ঘরে বসে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করবেন (How to Apply Online NID Card)। চলুন দেরি না করে শুরু করা যাক।

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ডকরতে কি কি দরকার? Bangladesh Nid Card Online

১. আপনার SSC সার্টিফিকেট।
২. জন্ম নিবন্ধন কার্ড।
৩. পাসপোর্ট / TIN / বা যেকোন একটি বয়স নির্নয়ের প্রমানপত্র।
৪. বাসার ঠিকানা প্রমানের জন্য বিদ্যুৎ বিল, বাসার হোল্ডিং নাম্বার বা গ্যাস বিল।
৫. নাগরিক সনদপত্র। যেটি চেয়ারম্যান দিয়ে থাকে)
৬. ক্ষেত্রে বিশেষে স্ত্রী, স্বামী, মা-বাবার জাতীয় পরিচয়পত্র ও প্রয়োজন হতে পারে।

রেজিস্ট্রেশন করার পূর্বে এই বিষয়গুলিঅবশ্যই আপনি জেনে রাখুন

যারা গত ১৮ বছর ধরে বিদেশে বসবাস করছেন বা যারা এখনও বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে উঠিন নি তারাই শুধুমাত্র অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবেন। যদি আপনি আগেই বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে থাকেন তাহলে সেই ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বার আবেদন করার কোন প্রয়োজন নেই।

আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র থাকার পরেও যদি আবার দ্বিতীয় বারের মত আবেদন করেন তাহলে সেটি সম্পূর্ণ আইন বিরোধী কাজ হিসেবে গন্য করা হবে। এবং এমন কাজের জন্য আপনার শাস্তি ও হতে পারে।

অনলাইনে ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন | নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

ধাপ ১ঃ প্রথমে https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ এই লিংকে ক্লিক করুন।

ধাপ ২ঃ এবার আপনাকে Full Name দিতে বলবে এমন জায়গায় নিয়ে আসবে। সেখানে পুরো নাম English এ দিন।

ধাপ ৩ঃ এখন আপনি আপনার জন্ম তারিখটি সঠিকভাবে পুরন করুন।

ধাপ ৪ঃ এবার আপনি একটি ক্যাপটা দেখতে পাবেন। ক্যাপটা টি সঠিক ভাবে পুরন করুন। তারপর Continue বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৫ঃ এবার আপনার সামনে মোবাইল নাম্বার দিতে বলবে এমন একটা ঘর আসবে। সেখানে আপনার একটি সচল মোবাইল নাম্বার দিন। কারন এই মোবাইল নাম্বারে একটি OTP কোড যাবে। যেটি দিয়ে আপনাকে ভেরিফাই করতে হবে।

ধাপ ৬ঃ এবার আপনার মোবাইল নাম্বারটি বসান। তারপর continue বাটনে ক্লিক করুন। তারপর আপনার সামনে OTP ভেরিফাই করার জন্য একটা ঘর আসবে। সেই ঘরে আপনার মোবাইলে আসা OTP কোডটি বসান। তারপর Continue বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৭ঃ এবার আপনাকে Username ও Password দিতে চাইবে এমন একটা জায়গায় নিয়ে আসবে। এবার আপনি একটি মনে রাখার মত Username দিন ও একটি শক্তিশালী Password দিন। আর এই দুইটা অবশ্যই কোথাও না কোথাও লিখে রাখবেন। কারন ভবিষ্যতে মনে না থাকলে অনেক সমস্যায় পড়তে পারেন। সবকিছু সঠিকভাবে দিয়ে Continue বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৮ঃ উপরে যে ৭ টি ধাপ দেখিয়ে দিয়েছি এই ধাপগুলো সঠিকভাবে করলে আপনি একটি নতুন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য একাউন্ট করতে পারবেন। এবার এখান থেকে আপনি নতুন করে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডির তথ্যপূরণ: Nid Data Element

ধাপ ১ঃ আপনার প্রোফাইল থেকে Edit Profile অপশনে যেয়ে আপনার ব্যক্তিগত তথ্যগুলো পুরন করে নিন।

ধাপ ২ঃ ব্যক্তিগত তথ্য, ঠিকানা, অন্যান্য তথ্য এই তিনটি অংশ দেখতে পাবেন। আপনি এই ৩ টি অংশ দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ধাপ ৩ঃ এবার আপনি সকল তথ্য গুলো একের পর এক সঠিক ভাবে পুরন করে দিন।

ধাপ ৪ঃ এবার পরবর্তী বাটনে ক্লিক করলে “requirement documents” যে পেপারগুলো আছে সবগুলো আপলোড করার অপশন পাবেন। আপনি সবগুলো পেপার এক এক করে আপলোড করে দিন।

এই ডকুমেন্টস গুলো আপলোড করার পূর্বে অবশ্যই কম্পিউটার দোকান থেকে স্ক্যান করে রাখবেন।

ধাপ ৫ঃ উপরে সকল ডকুমেন্টস সঠিকভাবে আপলোড করার পরে আপনার সামনে পুনরায় একবার চেক করার জন্য আসবে। আপনি সবকিছু একবার চেক করে নিন। তারপর Continue বাটনে ক্লিক করুন। মনে রাখবেন, এই সকল ডকুমেন্টস এর মধ্যে একটিও ভুল বা মিথ্যা ডকুমেন্টস দিবেন না। নাহলে আপনাকে আইনের দ্বারা সাজা পেতে হতে পারে।

ধাপ ৬ঃ সবকিছু সঠিকভাবে আপলোড করা হয়ে গেলে আপনাকে এইবার ডাউনলোড করে রাখতে বলবে। আপনি সকল কিছু ডাউনলোড করে রাখুন।

অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার ভেরিফিকেশন ধাপ | Nid Verify Bd

ধাপ ১ঃ প্রথমে আপনি আপনার এলাকার নিকটবর্তী নির্বাচন কমিশন অফিসে যেয়ে আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো জমা দিন।

ধাপ ২ঃ এবার সকল তথ্য তারা নিজের ভেরিফাই করে সবকিছু সঠিক থাকলে নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে আপনাকে SMS করে জনিয়ে দেওয়া হবে কবে, কখন, কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পাবেন।

ভোটার আইডি চেক করার নিয়ম | Online Nid Card Download

আপনি যদি পূর্বে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করে থাকেন বা নতুন আবেদন করে থাকেন তাহলে খুব সহজে অনলাইন থেকে ভোটার আইডি চেক করতে পারবেন।

অনলাইনে ভোটার আইডি চেক করার জন্য প্রথমে https://services.nidw.gov.bd/nid_info এই লিংকে ক্লিক করতে হবে। এবার আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার অথবা স্লিপ নাম্বার বসিয়ে চেক দিন।

জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদন করতে কত টাকা লাগে

জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদন করার জন্য আপনাকে একটি নির্দিষ্ট টাকা ফি হিসেবে দিতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র নবায়ন করার জন্য আপনাকে ৩০ দিনের জন্য ১০০ টাকা ও ৭ দিনের জন্য ১৫০ টাকা নির্বাচন কমিশন অফিসে জমা দিতে হবে।

আপনার জাতীয় পরিচয় যদি হারিয়ে যায়, পুড়ে যায়, বা চুরি হয়ে যায় তাহলে জাতীয় পরিচয়পত্র উত্তোলনের জন্য আপনাকে ২০০ টাকা, দ্বিতীয় আবেদনের জন্য ৩০০ টাকা ও তৃতীয় বার কার্ড উত্তোলনের জন্য আপনাকে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা ফি হিসেবে দিতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের জন্য আপনাকে প্রথম বার ২০০ টাকা, দ্বিতীয় বারের জন্য ৩০০ টাকা ও এর পর যতবারই আবেদন করেন না কেনো সব কয় বারের জন্য ৪০০ টাকা করে আবেদন ফি জমা দিতে হবে।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনে যোগাযোগ ঠিকানা এবং হেল্পলাইন নাম্বারঃ

  • ই–মেইলঃ info@nidw.gov.bd
  • হেল্পলাইনঃ ১০৫, +৮৮ ০১৭০৮–৫০১২৬১
  • যোগাযোগের সময়ঃ রবিবার–বৃহস্পতিবার, সকাল৯:০০টা – 
    বিকাল ৫:০০টা পর্যন্ত।

সর্বশেষ কথাঃ

উপরে আমরা অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র কিভাবে আবেদন করতে হয়, কত টাকা লাগে, কত দিন লাগে সবকিছু খুব ভালো ভাবে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করেছি। তারপরও যদি আপনাদের কোথাও বুঝতে সমস্যা হয় তাহলে নিজে কমেন্ট করে জানান। আমরা আপনাকে সবকিছু অনকে সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে দিবো।

You May Also Like

About the Author: banglait24

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *