ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সময় যে ভুলগুলো করা উচিত নয় | ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের নিয়ম

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের নিয়ম

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের নিয়ম: ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সময় যে ভুলগুলো করা উটিত নয় সেই সম্পর্কে আমরা সকলে জানতে চাইলেও সঠিকভাবে জেনে উঠতে পারি না। তাই যারা কিভাবে ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করতে হয় বা ক্রেডিটকার্ড ব্যবহারের সময় যে ভুলগুলো করা উচিত নয় সেই সম্পর্কে জানেন না তারা আজকের পোস্টটি পড়ুন। আমরা অনেক সহজভাবে আপনাকে বুঝিয়ে দিবো, কি কি ভুল কাজ ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সময় কখনও করা উচিত নয়।

আপনি হয়ত জানেন না, ক্রেডিট কার্ড সঠিক ভাবে ব্যবহার করলে আপনার অনেক খরচ বাচিয়ে দিবে। আপনার ক্রেডিট কার্ডটি যদি ভালো হয় তাহলে এই কার্ড থেকে অনেক সুযোগ সুবিধা এমনকি উপহারও পেতে পারেন। বিশেষ বিশেষ সময় অনেক দোকানে ক্রেডিট কার্ড থেকে কেনা কাটায় অনেক ছাড় দিয়ে থাকে। তাছাড়া ব্যাংক থেকে লোন পেতে ক্রেডিট কার্ড আপনাকে ব্যাংকের কাছে অনেক গ্রহনযোগ্যতা বাড়িয়ে দিবে।

এত সব সুযোগ সুবিধার পরেও আপনি ভাববেন না ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সময় আপনার কোন ঝুকি নেই। মনে রাখবেন, ক্রেডিট কার্ড হয়ে উঠতে পারে আপনার অনেক বড় মাথা ব্যাথার কারন। সেজন্য ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের সময় আপনাকে অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হবে। আপনাকে অনেক বিষয়ে বিশেষ লক্ষ্য রাখতে হবে।

আপনার যদি ক্রেডিট কার্ডের বিল দিতে অনেক দেরি হয়ে থাকে তাহলে ক্রেডিট কার্ডের জরিমানা স্বরূপ আপনাকে আলাদা করে ফি দিতে হবে। যা আপনার খরচকে বাড়িয়ে দিতে পারে। বর্তমান অর্থনৈতিক মন্দাগ্রস্ত অবস্থায় এই জরিমানা আপনার জন্য কষ্টের কারন হতে পারে।

আজকের এই পোস্টে ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে সবথেকে বড় ভুলগুলো নিয়ে আলোচনা করা হলো ও কিভাবে ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করতে হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। তাই আপনি যদি ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে থাকেন তাহলে আজকের পোস্টটি আপনার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ুন – লেখালেখি করে অনলাইন থেকে টাকা আয়

ক্রেডিট কার্ডের বিল দেরিতে পরিশোধ করা

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে সব থেকে বড় ভুলগুলোর মধ্যে ক্রেডিট কার্ডের বিল দেরিতে পরিশোধ করা অন্যতম। ক্রেডিট কার্ডের বিল কখনও দেরিতে পরিশোধ করা উচিত নয়। তবে সাধারনত ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারীরা এই ভুলটা সবথেকে বেশি করে থাকে।

এর ফলে ক্রেডিট কার্ডের খরচ একটু বেশি হয়ে যায়। যদি ক্রেডিট কার্ডের বিল দেরিতে পরিশোধ করেন তাহলে আপনার যেকোন ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে অনেক সমস্যা সৃষ্টি হবে। দেরিতে ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করার জন্য আপনার অনেক ধার হতে পারে। যেটি আপনার অনেক বড় মাথাব্যাথার একটা কারন।

তাই এই বড় জরিমানা থেকে নিজেকে বাচাতে আপনি ক্রেডিট কার্ডে একটি মাসিক রিমাইন্দার দিয়ে রাখতে পারেন। এতে করে প্রতিমাসে বকেয়া ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করে ঋনের বোঝা কিছুটা কমাতে পারবেন।

বেশিরভাগ ব্যাংক আপনার ক্রেডিট কার্ড থেকে অটো ক্রেডিট কার্ড মাসিক চার্জ সুবিধাও দিয়ে থাকে। এতে করে আপনার প্রতি মাসে কষ্ট করে ক্রেডিট কার্ড চার্জ দেওয়ার কোন প্রযোজন পড়ে না। অনেক ব্যাংক আছে যারা ক্রেডিট কার্ডের ফি পরিশোধ করার জন্য কিছু দিন সময় বেশি দিয়ে থাকে। তবে বেশিরভাগ ব্যাংক আপনার ক্রেডিট কার্ড থেকে ফি চার্জ করবে সাথে সাথে।

আপনি যদি প্রতিমাসে ক্রেডিট কার্ডের ফি সময় মতো পরিশোধ করে থাকেন তাহলে ব্যাংকের কাছে আপনার একটা মর্যাদা বৃদ্ধি পাবে। এতে করে আপনি যেকোন ব্যাংক থেকে সহজেই ব্যাংক ঋন নিতে পারবেন।

ক্রেডিট কার্ডের পুরো সীমা ব্যবহার করে ফেলা

ক্রেডিট কার্ডের পুরো সীমা ব্যবহার করে ফেলা কখনও উচিত নয়। আপনার আয় অনুযায়ী ব্যাংক আপনার ক্রেডিট কার্ডের খরচ করার পরিমাণ নির্ধারন করে দিয়ে থাকে। এতে করে আপনি নিজে যতটুকু আয় করেন সেই সীমার মধ্যে খরচ খরচ করতে পারেন।

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে আরও একটি বড় ভুল হলো, ক্রেডিট কার্ডের পুরো সীমা ব্যবহার করে ফেলা উচিত নয়। এতে করে আপনি যা খরচ করে ফেলেছেন তা শেষে যেয়ে পরিশোধ করা বেশ কঠিন হয়ে যাবে। ফলে আপনাকে অনেক বড় ঋণের ফাদে পড়তে হতে পারে। আপনার জন্য সবথেকে ভালো হয়, আপনার ক্রেডিট কার্ড সীমার ৩০% এর মধ্যে থাকা।

উদাহরণ হিসেবে আপনার ক্রেডিট কার্ডের সীমা যদি ১ লক্ষ টাকা হয় তাহলে ৩০ হাজার টাকার বেশি কখনও খরচ করা উচিত নয়। সকলের জন্য সবথেকে ভালো হয়, এই খরচের পরিমান ১৫% ওর নিচে রাখা।

আপনার ক্রেডিট কার্ড সীমার যত বেশি আপনি খরচ করবেন, ভেবে নিবেন আপনি তত বড় ঝুকিতে পড়তে যাচ্ছেন। আপনি ব্যাংক থেকে যত টাকা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে খরচ করবেন ঠিক ততটাকার ঋনের সুদ দিতে হবে আপনাকে।

আরও পড়ুন – মোবাইল চার্জ দেওয়ার সঠিক নিয়ম

সবসময় সবথেকে কম অংশ পেমেন্ট করা

ক্রেডিট কার্ড থেকে আপনি যত টাকা খরচ করেছেন, আপনার ব্যাংক সেই টাকার থেকে সর্বনিম্ন অংশ আপনার কাছে পেমেন্ট হিসেবে চেয়ে থাকে। এই টাকা পরিশোধ করার মাধ্যমে আপনি বাড়তি ফি ও ঋণের ইন্টারেস্ট কমাতে পারবেন। সবসময় এই সর্বনিম্ন অংশ নির্ধারন করা হয় ব্যাংক থেকে। তবে সর্বদা এই সর্বনিম্ন পেমেন্ট পরিশোধ করার মাধ্যমে আপনি বড় একটা ভুল করে ফেলতে পারেন।

বারবার সর্বনিন্ম অংশ পরিশোধ করার মাধ্যমে আপনি আরও বড় একটি ভুল করে ফেলতে পারেন। সবসময় সর্বনিম্ন বিল পরিশোধ করার মাধ্যমে আপনার দিনে দিনে আরও ঋণের বোঝা বাড়তে থাকবে এবং সুদের পরিমাণ অনেক বাড়তে থাকবে। তাই সর্বনিম্ন বিল পরিশোধ না করে পুর্ন বিল পরিশোধ করা উচিত। তবে সবমাসে পরিশোধ না করে পারলে অন্নত মিনিমাম পেমেন্টটা পরিশোধ করে কিছুটা ঋণমুক্ত হতে পারেন। তবে সর্বদা প্রতিমাসে পরিপূর্ণ বিল পরিশোধ করার চেষ্টা করা ভালো।

আপনার যদি প্রতিমাসে ক্রেডিট কার্ডের খরচ পরিশোধ করা সম্ভব না হয় তাহলে ক্রেডিট কার্ডটি কিছুদিন বন্ধ করে রাখা উচিত। ক্রেডিট কার্ডটি বন্ধ করে আগের বকেয়া পরিশোধ করা উচিত। এতে করে আপনি ঋণের ফাদ থেকে বাঁচতে পারবেন।

ক্রেডিট কার্ড থেকে সরাসরি ক্যাশ বের করা

অনেকে আছেন যারা ক্রেডিট কার্ড থেকে নগদ টাকা বের করে পকেটে রাখেন। এটি মারাত্মক একটি বড় ভুল। এই ভাবে ক্রেডিট কার্ড থেকে নগদ টাকা পেকেটে রাখার ফলে আপনার খরচি মনোভাব অনেক বেড়ে যাবে। তাই আপনাকে ক্রেডিট কার্ড দিয়ে ATM বুথ থেকে টাকা উঠানো থেকে বিরত থাকা উচিত।

ক্রেডিট কার্ডের নিয়ম অনুযায়ী এই ভাবে টাকা উত্তরন করার মাধ্যমে আপনার ইন্টারেস্টর পরিমাণ অনেক বেড়ে যায়। তাছাড়া অনেক কার্ডে এই ভাবে টাকা উত্তোলন করার জন্য আলাদা ট্রান্সেকশন ফিও দিতে হয়। তাই স্বাভাবিক ভাবে এই ভাবে টাকা উত্তোলন করা অনেক বেশি খরচ স্বাপেক্ষ। তাই কোন পণ্য কেনার সময় সরাসরি ক্রেডিট কার্ড থেকে পেমেন্ট পরিশোধ করা উত্তম।

ক্রেডিট কার্ড বন্ধ করে ফেলা

ক্রেডিট কার্ড বন্ধ করে রাখা একটি বড় ভুল কাজ। এতে করে ব্যাংকের কাছে আপনার ট্রাস্টনেস অনেক কমে যেতে পারে এবং ভবিষ্যতে ব্যাংক থেকে লোন পেতে সমস্যা হতে পারে। তাই ক্রেডিট কার্ড সর্বদা প্রয়োজনে নেওয়া উচিত। এবং ক্রেডিট কার্ডের সকল ঋণ পরিশোধ করে তারপর ক্রেডিট কার্ড বন্ধ করা উচিত।

আপনার যদি বাধ্য হয়ে কোন ক্রেডিট কার্ড বন্ধ করতে হয় তাহলে কার্ড বন্ধ করার আগে অবশ্যই কার্ডের সকল দেনা পাওয়া পরিশোধ করা উচিত।

অতিরিক্ত ক্রেডিট কার্ডের জন্য আবেদন

অতিরিক্ত ক্রেডিট কার্ডের আবেদন করা মোটেও উচিত নয়। এতে করে ক্রেডিট কার্ডের হিসাব রাখা সমস্যা হয়ে যেতে পারে। সবসময় প্রয়োজন অনুযায়ী ক্রেডিট কার্ডের আবেদন করা উচিত। চাহিদার থেকে বেশি ক্রেডিট কার্ডের আবেদন করলে আপনার খরচের পরিমান ও অনেক বেড়ে যায়। আর তাই প্রত্যেকের একটি কার্ড ব্যবহার করা উচিত।

নিয়মিত বিলিং স্টেটমেন্ট চেক না করা

আপনার ক্রেডিট কার্ডের স্টেটমেন্ট বা লেনদেনের হিসাব রাখা উচিত। এতে করে আপনার কোন কোন খাতে খরচ বেশি হচ্ছে সেই দিকে নজর দিতে পারবেন। এবং আপনার খরচ সম্পর্কে ধারনা হয়ে যাবে। আপনার ক্রেডিট কার্ডের হিসাব লেনদেন দেখে কোন খাতে খরচ বেশি হচ্ছে সেই দিকে নজর দিয়ে খরচের পরিমান কমিয়ে নিয়ে আসা উচিত। এতে করে আপনার কার্ডে কোন ভুল চার্জ হলে সেটি সাথে সাথে জানতে পারবেন এবং আপনার অতিরিক্ত খরচের পরিমান জেনে তা কমিয়ে নিয়ে আসতে পারবেন।

এতক্ষণ ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে কোন কোন ভুলগুলো করা কখনও উচিত নয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশাকরি আজকের পোস্টটি আপনার জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ হবে। এমন সব গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ পেতে আমাদের সাথে থাকুন।

You May Also Like

About the Author: banglait24

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *